Historic Mujibnagar Day Observed


 

মুক্তিযুদ্ধ ও অসাম্প্রদায়িক চেতনার বাংলাদেশ গঠনের আহ্বানে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (যবিপ্রবি) ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে বেলা ১১ টায় যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্যালারীতে ‘ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস ও বাংলাদেশের স্বাধীনতা’ শীর্ষক এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যবিপ্রবি কোষাধ্যক্ষ ও বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক শেখ আবুল হোসেন। মুক্তযুদ্ধের শুরুর নানা প্রেক্ষাপট তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘নানা বাধা সত্ত্বেও অক্লান্ত পরিশ্রম করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে রাষ্ট্রপতি করে ১০ এপ্রিল মুজিবনগর সরকার গঠন করা হয়। আর এই সরকার শপথ গ্রহণ করে ১৭ এপ্রিল। এই সরকারের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তাজউদ্দীন আহমদ। তিনি যুদ্ধের সময় শরণার্থী ক্যাম্পে এসে নানা নির্দেশনা ও বক্তব্য দিতেন। শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ করে আবুল হোসেন বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার চেতনা নিজেদের গড়ে তুলতে হবে। বাংলাদেশকে বিশ্বের অন্যতম দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।’

যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী আহসান হাবীব বলেন, দুটি কারণে সরকার গঠন খুবই জরুরি ছিল। এক. বহির্বিশ্বের সঙ্গে বাংলাদেশের যোগাযোগ এবং দুই. বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনা করা।

অনুষ্ঠানে সব বক্তাই মুজিবনগর সরকার গঠনের প্রেক্ষাপট ও গুরুত্ব তুলে ধরে বিস্তারিত আলোচনা করেন। ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা দপ্তরের পরিচালক ড. মো. নাজমুল হাসানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন বিজ্ঞান অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. মো. জিয়াউল আমিন, প্রধান চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. দীপক কুমার মন্ডল, পেট্রলিয়াম এন্ড মাইন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রভাষক শাহিন শাহ্, শহীদ মসিয়ুর রহমান হলের ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাব্বির হাসান প্রমুখ।

‘ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস ও বাংলাদেশের স্বাধীনতা’ শীর্ষক রচনা প্রতিযোগীতায় বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়। এতে প্রথম হন ইংরেজী বিভাগের শেখ ফাহাদ ফারদীন, দ্বিতীয় হন রসায়ন বিভাগের রাকিব হোসেন এবং তৃতীয় হন পরিবেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিভাগের মোস্তফা আল ইমরান।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনের দায়িত্বে ছিলেন ইংরেজী বিভাগের সহকারী অধ্যাপক জনাব ফারজানা নাসরিন।