জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে কটূক্তির প্রতিবাদে মানববন্ধন করে যবিপ্রবির শিক্ষক-কর্মকর্তারা। ছবি: জনসংযোগ শাখা, যবিপ্রবি

 

মোর্শেদ হাসানকে স্থায়ীভাবে অপসারণের দাবি

 

যশোর (৪ এপ্রিল, ২০১৮): মহান স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. মোর্শেদ হাসান খান কটূক্তি করায় তাকে স্থায়ীভাবে অপসারণ এবং দৈনিক নয়া দিগন্ত পত্রিকা নিষিদ্ধের দাবিতে মানববন্ধন করেছে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী শিক্ষক-কর্মকর্তারা।

 

আজ বুধবার সকাল ১০ টায় যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবনের সামনে আয়োজিত মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভায় তারা এ দাবি জানান। এ মানববন্ধনে একাত্মতা ঘোষণা করে ছাত্রলীগ। মানববন্ধনে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিপুল সংখ্যক শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীরা স্বত স্ফ‍ূর্তভাবে অংশগ্রহণ করেন।

 

মানববন্ধনে যবিপ্রবির নীল দলের আহ্বায়ক ড. মোঃ ইকবাল কবীর জাহিদ বলেন, জাতির জনককে যারা যথাযথ সম্মান দিতে পারে না, তারা এ দেশের নাগরিক হতে পারে না। তারা স্বাধীনতার সময়ে পরাজিত শক্তিকে লালন করে।

 

মানবন্ধনে যবিপ্রবি নীল দল চার দফা দফা দাবি পেশ করেন। দাবিগুলো হলো: মোর্শেদ হাসান খান কে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্থায়ী নিষিদ্ধকরণ, দৈনিক নয়া দিগন্ত পত্রিকা সম্পূর্ণ রুপে নিষিদ্ধকরণ, দৈনিক নয়া দিগন্ত পত্রিকার সম্পাদকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে কটূক্তি করলে আপিল বিহীন যাবজ্জীবন কারাদন্ডের বিধি রেখে আইন প্রনয়ণ করা।

 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. মোর্শেদ হাসান খান বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের বিরুদ্ধে দৈনিক নয়া দিগন্ত পত্রিকায় ‘জ্যোতির্ময় জিয়া’ নামে একটি লেখনিতে স্বাধীনতার ঘোষক হিসেবে জিয়াউর রহমানকে দাবি করেন এবং তৎকালীন সময়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে নিয়ে কটূক্তি করেন।

 

মানববন্ধনে আরও বক্তব্য দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. মোঃ আনিছুর রহমান, ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডিন ড. মোঃ জিয়াউল আমিন, শিক্ষক সমিতির কোষাধ্যক্ষ দেবেন্দ্র নাথ রায় প্রমুখ। মানববন্ধন পরিচালনা করেন যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ড. মোঃ নাজমুল হাসান।

 

 

বার্তা প্রেরক

মো: আব্দুর রশিদ

জনসংযোগ কর্মকর্তা

যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়