হবে কৌল তাত্ত্বিক গবেষণা ও পোনা উৎপাদন

বাংলাদেশের মৎস্য সম্পদের মাছের টেকসই উৎপাদনে কৌল তাত্ত্বিক গবেষণা, গুণগত মানের মাছের পোনা উৎপাদন, মা মাছের পুষ্টি ও স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা এবং বিশ্বমানের গবেষণাকে এগিয়ে নিতে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (যবিপ্রবি) প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে বিশ্বমানের হ্যাচারী ও ওয়েট ল্যাব।
আজ শনিবার দুপুরে ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের মাধ্যমে হ্যাচারীর নির্মাণকাজের উদ্বোধন করেন যবিপ্রবির উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো: আনোয়ার হোসেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিশারীজ অ্যান্ড মেরিন বায়োসায়েন্স বিভাগের তত্ত্বাবধানে হ্যাচারী ও ওয়েট ল্যাবটি নির্মিত হচ্ছে।
ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন শেষে যবিপ্রবির উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো: আনোয়ার হোসেনের সঙ্গে যশোরের বিশিষ্ট হ্যাচারী মালিকদের সঙ্গে মতবিনিময় অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো: আনোয়ার হোসেন হ্যাচারী মালিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, হাতে-কলমে শিক্ষা ও গবেষণার মাধ্যমে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা যেন গড়ে ওঠে, সেই লক্ষ্যে এই ধরনের হ্যাচারী ও ল্যাব প্রতিষ্ঠা করছে। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বের হওয়া শিক্ষার্থীরা যদি মানুষের কাজে না লাগে, তাহলে এই ধরনের গ্রাজুয়েট বের হয়ে তো কোনো লাভ নেই। তিনি বলেন, ‘আমেরিকা কী চায় সেটা আমাদের বিষয় নয়। আমাদের দেশ কী চায়, সেটার জন্যই দক্ষ গ্রাজুয়েট তৈরি করা আমাদের লক্ষ্য।’
মতবিনিময় সভায় যশোর জেলা মৎস্য হ্যাচারী সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব মো. ফিরোজ খান বলেন, ‘আমরা আশা করি, এই হ্যাচারী প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে যশোরের মৎস্য চাষী ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সংযোগ সৃষ্টি হলো। এর উত্তরোত্তর উন্নয়নের জন্য যশোরর সব মৎস্য চাষী সব ধরনের সহযোগিতা করবে।’ আরেক জন মৎস্য চাষী বলেন, ‘আমরা এখন মৎস্য জগতের উন্নয়নের মহাসড়কে এসেছি। বিশ্ববিদ্যালয়ের এই উদ্যোগে আমরা খুবই খুশি, আশার আলো দেখছি।’
হ্যাচারী ও ওয়েট ল্যাব প্রকল্পের ইনভেস্টিগেটর ফিশারীজ অ্যান্ড মেরিন বায়োসায়েন্স বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মো: মীর মোশাররফ হোসেন জানান, হ্যাচারী এবং ওয়েট ল্যাবে গুণগত মানের মাছের পোনা উৎপাদন এবং গবেষণা কাজের পাশাপাশি ছাত্র-ছাত্রীদের প্রজেক্ট থিসিস এবং ব্যবহারীক শিক্ষা অর্জনে গুরুত্বপূণ ভূমিকা পালন করবে। হ্যাচারীতে বাংলাদেশের মাছ চাষের চাহিদা অনুযায়ী চাষী পর্যায়ে মাছ চাষ সম্পর্কিত বিভিন্ন ধরনের সমস্যাসমুহ, পানির পরীক্ষণ, মাছের রোগের কারণ নির্ণয়, প্রতিরোধ এবং প্রতিকারের মাধ্যমে বিভাগের বিভিন্ন ধরণের উন্নয়নের পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক উন্নয়নে আর্থিক যোগান দেওয়া সম্ভব হবে।
ভিত্তিপ্রস্তার স্থাপন অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক শেখ আবুল হোসেন, যশোর জেলা মৎস্য হ্যাচারি মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম গুলজার, যুগ্ম সম্পাদক ওহিদুজ্জামান লুলু, গুণগত মানের পোনা উৎপাদনে এবং ওয়াটার রিসাইকেল পদ্ধিতি উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণ পদকপ্রাপ্ত মো. ইকরামুল কবীর পিন্টু, যশোর জেলা মৎস্য সমিতির প্রধান উপদেষ্টা সাইফুজ্জামান মজু, আফিল এক্যোয়া ফার্ম ও হ্যাচারীর ব্যবস্থাপক মো. শফিকুল ইসলাম প্রমুখ। এ ছাড়া অনুষ্ঠানে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভিন্ন বিভাগের চেয়ারম্যান, ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।
ভিত্তিস্থাপন শেষে এর সাফল্য কামনা করে দোয়া ও মোনজাত করা হয়। দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন যবিপ্রবির কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের পেশ ইমাম মাওলানা আকরামুল ইসলাম।